আনন্দনগরের ইয়ুথ ক্লাবের দুর্গাপূজা

ময়নাগুড়ি, ১৬ই অক্টোবর সোমবার, ময়নাগুড়ি বিভিন্ন বিগ বাজেটের দুর্গাপূজা গুলির মধ্যে অন্যতম ময়নাগুড়ি আনন্দনগরের ইয়ুথ ক্লাবের দুর্গাপূজা।
ইউথ ক্লাবের দুর্গাপূজা এবার ৬২ তম বর্ষ। এবারের পূজা প্যান্ডেলের থিম শিল্পীর কল্পনায় কোন এক রাজপ্রাসাদের অনুকরণে সুবিশাল এই পুজো মণ্ডপটি তৈরি করছেন বালুরঘাটের ভাই ভাই ডেকোরেটরের শিল্পীরা। পুজো মণ্ডপটি তে ফল ফুল এবং সবজির বীজ তৈরি করছেন শিল্পীরা। প্রায় একমাস ধরে অক্লান্ত পরিশ্রম করে এই মন্ডপটি তৈরি করেছেন বালুরঘাটের শিল্পীরা, যাতে করে সারা উত্তরবঙ্গের দর্শনার্থীদের নজর কাড়ে। প্যান্ডেলটির ভেতরে রয়েছে সুবিশাল আলোর ঝাড় বাতি এছাড়াও সম্পূর্ণ প্যান্ডেলে ঝাড়বাতি, তা ছাড়াও প্যান্ডেলে ব্যবহার করা হয়েছে আয়নার কারুকার্য। আলোক শয্যায় রয়েছে চন্দননগরের শিল্পীরা, প্রতিমা কৃষ্ণনগরের, এবার যদিও আলোকসজ্জা দর্শনার্থীদের নজর করবে। মূলগেট ছাড়া সম্পূর্ণ রাস্তায় আলোর মাধ্যমে তেরঙ্গায় সাজিয়ে তোলা হয়েছে। পূজা কমিটির যুগ্ম সম্পাদক বিশু সেন,বাবুয়া ভট্টাচার্য, বলেন তাদের এই পুজো মণ্ডপ টি এবার দর্শনার্থীদের নজর করবে বলে তাদের আশা সেই সঙ্গে উত্তরবঙ্গের মধ্যে সেরা স্থান অধিকার করবে বলে তাদের আশা, প্যান্ডেলের কাজ সম্পূর্ণ শেষ হয়ে গেছে রবিবারই। ক্লাব সদস্যদের ইচ্ছে দর্শনার্থীদের সুবিধার্থে তারা চতুর্দিতে ই উদ্বোধন করবে । এছাড়াও তারা বলেন পুজো প্যান্ডেলের পাশেই থাকছে বিভিন্ন স্টল খাবারের দোকান থেকে শুরু করে দোমকল কেন্দ্র, অনুসন্ধান কেন্দ্র, চিকিৎসা কেন্দ্র, এছাড়াও পূর্ণার্থীদের বিশ্রামের জন্য থাকছে আলাদা জায়গা, যেসব পুনরথি রা ছোট ছোট বাচ্চা নিয়ে পুজো দেখতে আসবেন সেই সব বাচ্চাদের দুগ্ধ পান করার জায়গাও করা হবে আলদা ভাবে। সেই সঙ্গে অসুস্থ এবং বয়স্ক ব্যক্তিদের জন্য থাকবে হুইলচেয়ার।ইতি মধ্যেই বিভিন্ন জায়গা থেকে দর্শনার্থীরা আগে থেকেই মন্ডপটি দেখতে শুরু করে দিয়েছেন বলে জানান পূজা কমিটির যুগ্ম সম্পাদক বিশু সেন। সদস্যদের দাবি এবারও তারা প্রথম স্থান অধিকার করবে বলে আশা।

Leave A Reply

Your email address will not be published.